প্রেম ছত্রাক (১৪).

প্রেম ছত্রাক (১৪)
-সাম্যময় সেন গুপ্ত-

বুনতে জানো কালো মেয়ে 
সাদা মেঘের শাড়ি ?
পথ কি চেনো যেথায় তোমার 
গোপণ মনের বাড়ি ?

অল্প কথা বলতে পারো 
চোঁখের ভাষা দিয়ে  ?
করতে পারো সবার মতো 
অংক কষে বিয়ে  ?!
————–

Advertisements

যা হারিয়েছি

যা হারিয়েছি      
         সাম্যময় সেন গুপ্ত
*
কখনও দাঙ্গা দেখেছ ? বা বিপ্লব    
অথবা জনরোষ…? জান কিভাবে   
বিপ্লব শুরু হয় ? আমি জানি ।  
দেখেছি সেই তরঙ্গের উৎপত্তি    
যখন সবাই উন্মুখ কিছু করার জন্য  
ঠিক তখন একটা উক্তি, একটা   
চিৎকার, জনতাকে দেখিয়ে দেয় পথ   
ভাঙার পথ, গড়ার পথ।    
*
কখন নরম ভোর দেখেছো ?  
বলতে পার কে কাকে প্রথম জাগায় –  
সূযকে পাখী, না পাখীকে সূয? 
আমি জানিনা, দেখিনি, নিজের   
ভাঙ্গাগড়ার খেলায় ছিলাম মেতে   
দেখিনি প্রকৃতির বিপ্লব।    
*
কোন ছোট্ট শিশুর মৃতদেহ দেখেছ ?    
লাল তাজা রক্তে রাঙা……! দেখনি ?  
আমি দেখেছি — রোজই দেখি……   
হাসছ বিপ্লবী মানুষ! জান না    
তোমার আমার সবার মধ্যেই  
আছে সেই মৃতদেহ ……… 
বিকেলের রক্তিম সূর্যের বিপ্লবী বুকে    
যেমন শায়িত আছে    
ভোরের ‘লাল’ সূর্যের মৃতদেহ ।    
————

প্রেম ছত্রাক (১৩)

প্রেম ছত্রাক (১৩)
-সাম্যময় সেন গুপ্ত-

আজ আকাশে বাতাসে হৃদয়ো হুতাশে –
কি কল্লোল, কি কল্লোল !
চকিত চপল আঁখিরো কোণেতে –
কি হিল্লোল, কি হিল্লোল !
তোমাতে আমাতে শয়নে সপোনে –
ঐকতান,  ঐকতান !
অজানা আগুনে শ্রাবণে প্লাবনে –
ডেকেছে বাণ দারুণ বাণ

তাই তো তোমায় সংগোপনে 
লুকিয়ে রাখি আমার মনে 
ভালবাসার বিষম দায়
বুঝতে চাইলেই বোঝা যায়
————

দেখো আবার ফেলে দিওনা

দেখো আবার ফেলে দিওনা
– সাম্যময় সেন গুপ্ত  –

হাতের কাছে রাখছি দুধের বাটি
        দেখো, আবার ফেলে দিওনা।
নাগালে রাখছি খন্ডিত ভারত ,
        দেখো, আবার ফেলে দিওনা।
পায়ের কাছে রাখছি চাদর উষ্ণতা -,
        দেখো, আবার ফেলে দিওনা।
চিঠিগুলো সব রাখলাম ডান দিকে
বাঁ পাশে স্বপ্ন জড়ো করা,
       দেখো, আবার ফেলে দিওনা।
গুছিয়ে রাখা ডায়রির পাতা, তারই পাশে,
       দেখো, আবার ফেলে দিওনা।
ভ্রুন হতে ভ্রুনে যাত্রা নিরন্তর ……
অনন্ত নীল হাতছানি আর সবুজ সঙ্কেত,
       দেখো, আবার ফেলে দিওনা।
ঘুমের বড়ি মাত্রার চেয়ে বেশী
        দেখো, প্লিজ ফেলে দিওনা!
—————

কোন  এক মেয়ের কথা 

কোন  এক মেয়ের কথা 

-সাম্যময় সেন গুপ্ত –

অগণিত মানুষের ভিড়,
তারই মাঝে কোন একজন আমার -,
চাইলেই পাওয়া যায় তাকে
আমার অরণ্য, আমার বৃষ্টি 
তার, শুধু তার 
তার কাছে শান্তি, তার কাছে আগুন,
তার কাছেই ঠিকানা হারাবার !
——

মন খারাপের খবর

মন খারাপের খবর
-সাম্যময় সেন গুপ্ত-

বিরহ না হয় হলই, সামান্য এই বেলা
বিষাদ মাখা কারুকাজ, গোধুলি আলাপণ
নয়নে মেঘ সমাবেশ, রৌদ্র ছেলেখেলা
দূর থেকে সুদুর পাড়ি, অবাধ্য আপন।

নিকটহীন ; ক্ষমাহীণ, অনন্ত শুষ্ক আপোষ
বিগত সেই জীবনেরই ছায়া মূল্যহীন,
স্বপ্নঘন গভীর গোপন শোষণ
মরা নদির শুকনো তট, অভিমানে দীন।
———